10টি অন্ধকার দিক- শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার ও তার অন্ধকার: শিক্ষার সঙ্গে ইন্টারনেটের যোগাযোগ ও সম্পর্ক ছাত্রদের তথ্য সংগ্রহ, সহযোগিতা এবং শিক্ষামূলক বিষয়বস্তুর আন্ত-সম্পর্ক নিঃসন্দেহে শিক্ষা বিপ্লবের এক শুভ সূচনা । শিক্ষার সমস্ত বিষয় ক্রমবর্ধমান ডিজিটাল হয়ে উঠলে, শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যাপক ব্যবহার এই ক্ষেত্রে কিছু নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। সে নেতিবাচক প্রভাবগুলির সমালোচনা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই নিবন্ধে কিছু ক্ষতিকারক প্রভাব অন্বেষণ করার চেষ্টা করা হয়েছে। অত্যধিক ইন্টারনেট ব্যবহারকরি ছাত্র, শিক্ষাবিদ এবং সামগ্রিক শিক্ষার পরিবেশের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত।

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে একথা অস্বীকায়র করার উপায় নেই। শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার শিক্ষা ক্ষেত্রে প্রচুর সুবিধা প্রদান করেছে। সহযোগিতার দ্বারা প্রথাগত শ্রেণীকক্ষের দেয়ালের বাইরে শেখার সুযোগ প্রসারিত করেছে। এর রূপান্তরমূলক সম্ভাবনার পাশাপাশি, ইন্টারনেট সম্ভাব্য ত্রুটিগুলিকেও অস্বীকার করা যায় ন। শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার শিক্ষাগত প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে ছাড়ে না। শিক্ষার্থীদের উন্নয়ন ও মঙ্গলকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে।

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার ও তার অন্ধকার দিকগুলি-

বিভ্রান্তি ছড়ানো এবং শিক্ষার প্রতি কম মনোযোগ

শিক্ষায় ইন্টারনেট ব্যবহারের একটি উল্লেখযোগ্য ক্ষতি হল শিক্ষার্থীদের পড়াশুনা থেকে বিক্ষিপ্ত হওয়ার প্রবণতার সম্ভাবনা। শিক্ষার্থীরা, ইন্টারনেট-যুক্ত ডিভাইসে প্রায়ই অনলাইনে থাকার জন্য তাসের মন পড়াশুনা থেকে বিক্ষিপ্ত হয়। ইন্টারনেটের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া, অনলাইন গেমস এবং অবিরাম ব্রাউজিং, বিনোদন ওয়েবসাইট এবং শিক্ষার থেকে সম্পর্কহীন বিষয়বস্তু তাদের মনোযোগ সরিয়ে দিচ্ছে। যার ফলে শিক্ষামূলক কাজগুলি থেকে তাদের মনোযোগ কমে যাচ্ছে।

ইন্টারনেটের মধে রয়েছে বিশাল অপরিসীম আকর্ষক বিষয়বস্তু, যা সহজেই ছাত্রদের মনোযোগ তাদের পড়াশুনা থেকে সরিয়ে দিচ্ছে। এই বিভ্রান্তি মনোযোগের স্প্যানকে খণ্ডিত করে উত্পাদনশীলতা হ্রাস করছে। শেষ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের সক্রিয় ও কার্যকরভাবে শেখার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।

তথ্যের জন্য বাড়তি চাপ-

ইন্টারনেট হল তথ্যের একটি সমুদ্র, বিশাল এর ব্যাপ্তি। এটি একদিকে যেমন উপকারী হতে পারে, অন্যদিকে এটি অপ্রতিরোধ্যও হতে পারে। শিক্ষার্থীরা তথ্যের বাড়তি চাপের সাথে লড়াই করতে করতে পরিশ্রান্ত হতে পারে। ইন্টারনেট অবিশ্বস্ত ব্যক্তিদের থেকে নির্ভরযোগ্য উত্সগুলি সনাক্ত ও পৃথক করা কঠিন করে তোলে। বিপুল পরিমাণ তথ্য থেকে বাছাই করা বিভ্রান্তির কারণ হতে পারে। কার্যকর শিক্ষাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

চুরি এবং শিক্ষাগত অসদাচরণ বৃদ্ধি-

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার তথ্যের চুরির ঘটনাকে সহজলভ্য করে তোলে। শিক্ষাগত অসদাচরণকে উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি করেছে। শিক্ষার্থীরা তাদের কাজের অখণ্ডতার সাথে আপস করে অনলাইন উত্স থেকে সরাসরি তথ্য কপি-পেস্ট করতে প্রলুব্ধ হতে পারে ও হচ্ছে। মূল বিষয়বস্তু এবং অবীদের থেকে ধার করা বিষয়বস্তুর মধ্যে অস্পষ্ট তথ্যগুলির সমালোচনামূলক চিন্তাভাবনা স্বাধীন গবেষণা দক্ষতার বিকাশের জন্য বাধা সৃষ্টি করে।

সামাজিকভাবে পৃথক থাকা-

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার ছাত্রছারীদের সঙ্গে ব্যক্তিদের সংযোগ এবং বিচ্ছিন্ন উভয়েরই বিপরীতমুখী প্রভাব রয়েছে। একটি শিক্ষাগত প্রেক্ষাপটে অনলাইন সম্পদের উপর অত্যধিক নির্ভরতা শিক্ষার্থীদের মধ্যে সরাসরি মুখোমুখি মিথস্ক্রিয়া হ্রাস করতে পারে। অত্যধিক শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার সামাজিক দক্ষতা, ব্যক্তিগত এবং পেশাদারিত্ব বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়তাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে তুলতে পারে এবং বিচ্ছিন্নতার অনুভূতিতে প্রভাবিত করতে পারে।

অত্যধিক প্রযুক্তি নির্ভরতা বৃদ্ধি

যদিও বর্তমানে প্রযুক্তি একটি মূল্যবান হাতিয়ার। শিক্ষাগত উদ্দেশ্যে ইন্টারনেটের উপর অত্যধিক নির্ভরতা এমন একটি পরনির্ভরতা সৃষ্টি করতে পারে যা ছাত্রদের সমালোচনামূলক স্বাধীনভাবে চিন্তা করার ক্ষমতাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। শুধুমাত্র ইন্টারনেট-ভিত্তিক সংস্থানগুলির উপর নির্ভর করা ছাত্রদের বিভিন্ন শিক্ষার অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান অর্জনের বিকল্প ফর্মগুলির উন্মুক্ততাকে সীমিত করতে পারে।

Relevant Posts- ভারতে কি প্রাসঙ্গিক শিক্ষা চালু রয়েছে?

ইন্টারনেটের আসক্তির প্রকৃতি ছাত্রদের শিক্ষাগত ব্যস্ততা এবং সামগ্রিক সুস্থতার জন্য একটি উল্লেখযোগ্য বাধা। অনলাইন ক্রিয়াকলাপ, বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়া এবং গেমিং, অত্যধিক আকর্ষণীয় হয়ে উঠছে। এমন দেখা যাচ্ছে যে ইন্টারনেটের ব্যবহার যেন বাধ্যতামূলক ব্যবহার এবং আসক্তির দিকটিই বিশেষভাবে নির্দিষ্ট হচ্ছে। এই আসক্তি শারীরিক, মনস্তাত্ত্বিক এবং সামাজিক পরিণতিগুলির মধ্যে প্রসারিত হচ্ছে। যার মধ্যে ঘুমের অভাব, মেজাজের পরিবর্তন এবং সম্পর্কের টানাপোড়েন বিদ্যমান রয়েছে।

গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তার জনিত উদ্বেগ

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার প্রায়ই ব্যক্তিগত তথ্য বিনিময় করে নেওয়া, অনলাইনে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেওয়া এবং ভার্চুয়াল আলোচনাও জড়িত থাকে। এটি গোপনীয়তা এবং নিরাপত্তা উদ্বেগের দরজা প্রকটভাবে খুলে দেয়। অনলাইন শিক্ষাগত প্ল্যাটফর্মের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপন করে শিক্ষার্থীরা ডেটা লঙ্ঘন, পরিচয় চুরি বা অন্যান্য সাইবার হুমকির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে এবং এর ঘটনায শিকার হওয়া ছাত্রছাত্রীয়ের সংখ্যাও কম নয়।

Image by methodshop from Pixabay

তাছাড়াও একাডেমিক রেকর্ড, ব্রাউজিং হিস্টোরী এবং অনলাইন চ্যাট সহ ব্যক্তিগত তথ্য, অননুমোদিত অ্যাক্সেস, চুরি বা অপব্যবহারের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে। এটি পরিচয় চুরি, সুনামের ক্ষতি, বদনাম এবং মানসিক কষ্ট ও অবসদের অন্যতম কারণ হতে পারে।

শারীরিক স্বাস্থ্য অবনমন-

শিক্ষাগত উদ্দেশ্যে ডিজিটাল ডিভাইসের অত্যধিক ব্যবহার শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক সুস্থতার উপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। দীর্ঘক্ষণ স্ক্রিন টাইম চোখের উপর চাপ সৃষ্টি করছে, মাথাব্যথা, ঘুম ব্যাহত এবং মানসিক চাপের মাত্রা বৃদ্ধির মতো সমস্যাগুলি যথেষ্ট বাড়িয়ে দেয়। অনলাইন শিক্ষার প্রকৃতি শারীরিক চলাফেরা কম হওয়ার জন্য সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে। তাছাড়াও স্থুলতা, কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা বা হৃদরোগের প্রবণতা বৃদ্ধি এবং অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী স্বাস্থ্যের অবস্থার জন্য দায়ী হতে পারে।

শিক্ষায় বৈষম্যের প্রবেশাধিকার-

যদিও ইন্টারনেটে শিক্ষাকে গণতান্ত্রিক করার সম্ভাবনা রয়েছে, তথাপি বাস্তবতা হল যে, অর্থনৈতিকভাবে সমস্ত শিক্ষার্থীর পক্ষে অনলাইন শিক্ষা গ্রহণ করার ক্ষমতা সমান নয়। আর্থ-সামাজিক বৈষম্যের ফলে কিছু শিক্ষার্থীর প্রয়োজনীয় ডিভাইস বা নির্ভরযোগ্য ইন্টারনেট সংযোগের অভাব হতে পারে, যা একটি ডিজিটাল বিভাজন তৈরি করে, শিক্ষাগত বৈষম্যকে আরও বাড়িয়ে তোলে।

সাইবার বুলিং এবং অনলাইন হয়রানির শিকার-

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার cyber bullying bongobodh

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার কম বয়সী ছাত্রছাত্রীদের সাইবার বুলিং– এ শিকার হওয়ার সম্ভাবনা প্রচুর। সাইবার দুর্নীতিতে যুক্ত মানুষজন কম বয়সী ছাত্রছাত্রীদের বিশেষ করে ছাত্রীদের শিকার করার জন্য নানারকম প্রলোভন দেয়। তারা প্রলোভনের শিকার হচ্ছে। অন্যদিকে ইন্টারনেটে ইউজাররা তাদের ছবি, ভিডিও আপলোড করে থাকলে হ্যাকাররা সেই ছবি বা ভিডিওকে বিকৃতি করে নানারকম ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করে।

শিক্ষার্থীরা অনলাইনে দুর্ব্যবহার, অপমান এবং সহকর্মী বা অপরিচিতদের কাছ থেকে হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে। যার ফলে মানসিক যন্ত্রণা, উদ্বেগ এবং এমনকি তাদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে। এটি চারছাত্রিদের সামাজিক বিচ্ছিন্নতা, আত্মসম্মান হ্রাস এবং এমনকি আত্মহত্যার দিকে ঠেলে দিতে পারে।

সামাজিক সম্পর্কে দক্ষতা হ্রাস-

শিক্ষায় অত্যধিক ইন্টারনেট ব্যবহার ও অপরিহার্যতা সামাজিক মিথস্ক্রিয়া এবং যোগাযোগ দক্ষতার বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করছে। মানুষের সঙ্গে সরাসরি কথা বলে যে সহানুভূতি পাওয়া যায় তা দ্বন্দ্ব সমাধানের সুযোগ প্রদান করে। এই পদ্ধতি ব্যক্তিগত এবং পেশাদার সাফল্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অনলাইন যোগাযোগের উপর অত্যধিক নির্ভরতা সামাজিক দৃশ্যদূষণ, সম্পর্ক তৈরিতে অসুবিধা এবং বাস্তব-বিশ্বের সম্পর্কের অকার্যকর যোগাযোগের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

আরো পড়ুন- বাচ্চারা কিভাবে সোশাল মিডিয়া ব্যবহার করবে।

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার নেতিবাচক প্রভাব প্রশমন কিভাবে করা যাবে?

শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার ও তার নেতিবাচক প্রভাবগুলি প্রশমিত করার জন্য, একটি বহুমুখী পদ্ধতির প্রয়োজন রয়েছে।

শিক্ষার্থীদের প্রকৃত শিক্ষিত করতে হবে-

শিক্ষার্থীদের নিরাপদে এবং দায়িত্বের সাথে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে সহায়তা করার জন্য ডিজিটাল সাক্ষরতা প্রশিক্ষণ প্রদান করা প্রয়োজন। তাদের যে সমস্যাগুলির সম্মুখীন হতে পারে সেগুলিকে সমালোচনামূলকভাবে মূল্যায়ন করে, অনলাইন হুমকি সনাক্ত করতে এবং তাদের গোপনীয়তা রক্ষা করতে শিক্ষার প্রয়োজন।

ডিজিটাল ভারসাম্য প্রচার-

শিক্ষার্থীদের শারীরিক ব্যায়াম, সামাজিক মিথস্ক্রিয়া, যোগাযোগ ও সম্পর্ক এবং সৃজনশীল সৃষ্টি সহ ইন্টারনেটের বাইরে বিভিন্ন ক্রিয়াকলাপে জড়িত হতে উত্সাহিত করা দরকার আছে। স্বাস্থ্যকর স্ক্রিন টাইম ব্যবহারে অভ্যাস করার জন্য, ডিজিটাল ডিভাইস থেকে তাদের বিরতির প্রয়োজনীয়তাকে উত্সাহিত করার শিক্ষা প্রযোজন।

সুস্পষ্ট, পরিষ্কার নির্দেশিকার পযোজন-

স্কুল এবং বাড়িতে ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য স্পষ্ট নির্দেশিকা সেট কর দরকার। যার মধ্যে থাকবে গ্রহণযোগ্য অনলাইন আচরণ, সময়সীমা, এবং পিতামাতার ও শিক্ষক শিক্ষিকার তত্ত্বাবধান।

খোলামেলা যোগাযোগ বৃদ্ধি

ইন্টারনেট ব্যবহার এবং উদ্ভূত যেকোনো উদ্বেগ সম্পর্কে বাবা-মা, শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে খোলা মেলা যোগাযোগকে উৎসাহিত একান্তভাবে দরকার। ইন্টারনেট ও সামাজিক মাধ্যম আসক্তি, সাইবার বুলিং বা অন্যান্য অনলাইন সমস্যাগুলির সাথে সংগ্রামরত শিক্ষার্থীদের জন্য সহায়তা পরিষেবা প্রদান দরকার। এক্ষেত্রে সরকারীভাবে শিবির আয়োজন অত্যন্ত জরুরী।

দায়িত্বশীল ইন্টারনেট ব্যবহারের অগ্রাধিকার-

শিক্ষক, পিতামাতা এবং সহকর্মী ছাত্রদের মধ্যে দায়িত্বশীল ইন্টারনেট ব্যবহারকে উৎসাহিত করতে হবে। স্বাস্থ্যকর ইন্টারনেট ডিজিটাল ব্যবহার অভ্যাস প্রদর্শন এবং অনলাইন আচরণ প্রচার একটি ইতিবাচক দায়িত্বশীল উদাহরণ স্থাপন করার দিকে শিক্ষার্থীদের সচেতন করা দরকার।

উপসংহার

যদিও শিক্ষায় ইন্টারনেটের ব্যবহার নিঃসন্দেহে শিক্ষার ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা নিয়ে এসেছে। তথাপি এটির ব্যাপক ব্যবহারের সাথে সম্পর্কিত নেতিবাচক প্রভাবগুলি স্বীকার করে তার মোকাবেলা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। স্বাস্থ্যকর কার্যকর শিক্ষার পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য অনলাইন সংস্থানগুলির উপকারিতা বৃদ্ধি এবং ক্ষতিকারক প্রভাবগুলি হ্রাস করার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা অপরিহার্য। শিক্ষায় ইন্টারনেট ব্যবহারের অন্ধকার দিক দ্বারা সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলিকে চিহ্নিত করার জন্য শিক্ষাবিদ, নীতিনির্ধারক এবং ছাত্রদের একইভাবে সহযোগিতামূলকভাবে কাজ করতে হবে। এটা সুনিশ্চিত করতে হবে যে, প্রযুক্তি শিক্ষাগত অভিজ্ঞতাকে বাধাগ্রস্ত করার পরিবর্তে উন্নত করে।

শিক্ষায় ইন্টারনেট ব্যবহারের সম্ভাব্য ত্রুটিগুলি স্বীকার করে এবং সমাধান করার মাধ্যমে, আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের মঙ্গলময় জীবন এবং শিক্ষাগত সাফল্যকে সুরক্ষিত করার সাথে সাথে প্রযুক্তির শক্তিকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে কাজে লাগানোর অঙ্গীকার করতে হবে।

Leave a Comment