Who will be the Winner- President of Russia Vs Ukraine President | যুদ্ধ- জয় পরাজয় ও নৈতিকতা

President of Russia

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট এবং ইউক্রেন প্রেসিডেন্টের মধ্যে কে জয়লাভ করবেন(Who is the Winner- President of Russia Vs Ukraine President)? এর উত্তর সহজেই দেওয়া যায়। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধে(russia ukraine War) রাশিয়ার প্রেসিডেণ্ট পুতিন বল প্রয়োগের মাধ্যমে তুলনায় দুর্বল ইউক্রেনকে ধরাশায়ী করবে, রাশিয়া যুদ্ধে জয়ীও হবে, কিন্তু কোথায় যেন Ukraine President জেলেন্সকি মাথা উঁচু করে হার স্বীকার করেও জয়ী হয়ে থাকছেন। সারা পৃথিবীর সাধারণ মানুষ জেলেন্সকির প্রতি ঢেলে দিচ্ছে অপরিসীম ভালোবাসা আর শ্রদ্ধা। বিপরীতে রাশিয়ান প্রেসিডেণ্ট(President of Russia) পুতিনের ভাঁড়ারে কেবলই ধিক্কার। যে সাহস নিয়ে জেলেন্সকি এখনো তার বুক পাঁচিলের মত করে আড়াল করে রেখেছেন ইউক্রেনীয়দের তাতে ইউক্রেনীয়রা পেয়েছে এক বিশ্বাসযোগ্য নেতা, অন্যদিকে তারাও তুলে নিয়েছে অস্ত্র, নেমে পড়েছে যুদ্ধ ক্ষেত্রে।

One Way Image of Russia Ukraine War-

পুতিনের পরিকল্পনা ছিল কেবল ইউক্রেনে প্রবেশ করেই এবং তাদের তুলনামূলক দুর্বল সেনাবাহিনীকে ধরাশায়ী করা। কিন্তু এখনো পর্যন্ত হিতে বিপরীত হয়েছে। ইউক্রেনীয় সেনা এখনো তাদের মনোবল অক্ষুণ্য রাখতে পেরেছে। অন্যদিকে পুতিন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ধমকের সুরে দূরে সরিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি দুর্বল দেশকে হস্তক্ষেপ করুন এবং গুরুতর পরিণতির মুখোমুখি হন। রাজধানী কিয়েভ, খারকিভ ধ্বংস করুন এবং, যদি ভলোদিমির জেলেনস্কি বাধা দেয় তবে তাকে মনে করিয়ে দিন যে, তিনি কত শক্তিধর।

কিন্তু বিপরীত স্রোত | Reverse Flow of Russia Ukraine War-

কিন্তু সমস্যা হল রাশিয়ানরা ইউক্রেনে প্রবেশ করেও, ইউক্রেনীয়রা আফগানিস্তানের মতো আত্মসমর্পণ করেনি। পুতিনের দীর্ঘ রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে এটাই সবচেয়ে বড় ধাক্কা। তিনি সহজ জয়ের আশায় ছিলেন, যে পরাক্রমশালী রাশিয়ান সেনাবাহিনী ইউক্রেন সেনাকে কয়েক দিনের মধ্যে নিশ্চিত করবে। পুতিন শক্তিশালী মানুষ। মুক্তিদাতা হয়ে উঠবেন এবং তার পছন্দের সরকার প্রতিষ্ঠা করবেন।

সারা বিশ্ব প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে বলেই আগেই তিনি হুমকি ও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেই রেখেছিলেন। রুশীয়দের অনুভূতি তিক্ত না হওয়ার আগে, রাশিয়ানরা তাদের নিজের নেতাকে প্রশ্ন করা শুরু করার আগেই, পুতিন আশা করেছিলেন এই যুদ্ধ শেষ করে দেবেন।

Ukraine President became- a hero-

কিন্তু দিন দুয়েকের মধ্যেই ইউক্রেন রাষ্ট্রপতি ভেলোদিমির জেলেনস্কি একজন নায়ক হিসাবে আবির্ভূত হয়েছেন(Ukraine President Volodymyr Zelenskyy became a hero)। প্রাক্তন অভিনেতা এবং কৌতুক অভিনেতা হিসাবে তাকে মজা করা হয়েছিল। জেলেনস্কি পুতিনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত। এবার আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছে রাশিয়া! কিন্তু ভোলোদিমির জেলেনস্কি বেলারুশ আলোচনা প্রত্যাখ্যান করেন। কারণ বেলারুশ রাশিয়ার মিত্র। পুতিনের খ্যাতি এমনিতেই বিশ্বাসযোগ্য নয়, তাই বেলারুশের কাছেও নেই। ভেলোদিমির জেলেনস্কি একটি নিরপেক্ষ ভেন্যু আশা করছেন।

দিন কয়েকের মধ্যে গল্প কীভাবে বদলে গেল?

কেন জেলেন্সকি পুতিনকে এড়িয়ে যাওয়া শুরু করলো? এবং ইউক্রেন এত ভালবাসা এবং সমর্থন অর্জন করলো? সে বিষয়ে আলোকপাত ও ব্যাখ্যা করার জন্য এই লেখার অবতারণা। পুতিন নিঃসন্দেহে ইউক্রেনকে ধরাশায়ী করছে ও ভবিষ্যতেও করবে। ধংস হবে সম্পদ। কিন্তু এই যুদ্ধে পুতিন বিজয়ী হলেও বিশ্বের কাছে, তার সুনাম নষ্ট হয়েছে। ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট নিষেধাজ্ঞা আরোপ ছাড়াও তিনটি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখন রাশিয়া সুইফট পেমেন্ট নেটওয়ার্ক থেকে বিতাড়িত হয়েছে। রাশিয়ানরা বিদেশী মুদ্রায় অর্থ প্রদান করতে, বাইরের দেশে কেনা বা বিক্রি করতে অসমর্থ হবে। রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপর নিষেধাজ্ঞার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, যেখানে পুতিন বিনিয়োগ করেছেন। যাতে পুতিন যুদ্ধে অর্থায়ন করতে না পারেন

এটা ব্লা হয়ে থাকে যে, যদি হিটলারের অর্থ তহবিল ও অর্থ সাহায্য সময়মতো বন্ধ করা যেত তবে বিশ্বযুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরী হত না। এক্ষেত্রে রাশিয়ান অলিগার্চরা যদি আর্থিক সহায়তা দিতে বিমুখ হত তাহলেও রাশিয়া এতটা ভয়ংকর হত না।

জার্মানি চেষ্টস করেছিল ইউক্রেনকে উদ্ধার করার, তাই তারা অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক সহ অস্ত্র এবং স্টিংগার মিসাইল সরবরাহ করছে। এটি ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে কি’না জানা নেই, তবে জার্মানির নিজস্ব সামরিক রিজার্ভ থেকে বিশুদ্ধ সাহায্য। একজন পাগল কিভাবে পৃথিবীকে ধ্বংস করতে পারে জার্মানির চেয়ে ভালো কে জানে? হয়তো জার্মানি অন্য হিটলারকে সহ্য করতে পারে না। জার্মান চ্যান্সেলর বলেছেন যে ইউক্রেনের উপর রাশিয়ান হামলা একটি টার্নিং পয়েন্ট চিহ্নিত করেছে যে, ভূ-রাজনীতি বিকশিত হচ্ছে। যদিও জার্মানি রাশিয়ান গ্যাসের উপর নির্ভরশীল। তথাপি পরিবেশ দূষণ ও উদ্বেগের জন্য পারমাণবিক শক্তি পরীক্ষা বন্ধ করা হয়েছে। এখন জার্মানি শক্তির প্রয়োজনে স্বনির্ভরতা অর্জনের অঙ্গীকার করেছে৷

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল সংকল্পের গুরুত্বকে প্রাধান্য দেওয়া।

স্বল্প সময়ের ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী বড় অত্যাধুনিক রাশিয়ান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর সাহসিকতা। ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর নিয়োগের বিজ্ঞাপনে বিদেশীদেরো আহ্বান করা হচ্ছে। অন্য একটি হৃদয়গ্রাহী পুরোনো ভিডিও- ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী‘তে থাকার জন্য তাদের স্বাভাবিক পারিবারিক জীবন উৎসর্গ দেশের জন্য। বিজ্ঞাপন পুরানো হলেও অনুভূতি এখনও নতুন হিসাবে তরতাজা। অস্ত্র হাতে তুলে নিচ্ছেন সংসদ সদস্য ও সাবেক ব্যবসায়ী। রাশিয়া যখন আক্রমণ করেছিল তখন সবে বিবাহিত দম্পতি। বর্তমানে সেই বিবাহিত দম্পতি এখন যুদ্ধক্ষেত্রে। অন্য আর একটি ঘটনা- বম্ব সেল্টারেই প্রেমিক-প্রেমিকা জুটি বিবাহ করলেন। তবে এই খবর ও ছবিগুলি সত্য কিনা তা যাচাই করা কঠিন হতে পারে।

কিন্তু বাস্তবতা হল, মানুষের সংকল্প আগত শক্তির চেয়ে শক্তিশালী। স্বাধীনতা রক্ষার চেতনা পাথরের মতো শক্তিশালী। যতদূর জানা যাচ্ছে- পুতিন উদ্বিগ্ন, খবরের এক বোকা অতিথি হিসাবে বিবেচিত হচ্ছেন। উপদেষ্টারা হয়তো পুতিনকে জয়ের নিশ্চয়তা দিয়েছেন।

কিন্তু জেলেনস্কি এখান থেকে সরে যাবেন এমন ধারণা ভুল। প্রকৃতপক্ষে ইউক্রেনীয়রা এবার আগের চেয়ে অনেক বেশি ঐক্যবদ্ধ। পুতিন ইউক্রেনের মাঝখানে বোমা ফেলতে পারে। কিন্তু মনে রাখতে হবে কেবল্মাত্র বোমা ফেলার জন্যই আক্রমণ শুরু হয়নি। ইউক্রেন রশিয়ার ছোট ভাইয়ের মতো এবং রাশিয়ানরাও ইউক্রেনে বাস করে। এই আক্রমণের পর, ইউক্রেনীয়রা ব্যাপকভাবে পুতিনকে ঘৃণা করবে। তাই সবাই এটিকে পুতিনের যুদ্ধ বলছে, রাশিয়ার নয়। সাধারণ মানুষ অস্ত্র হাতে নিচ্ছে। নারীরা রাস্তায় মলোটভ ককটেল তৈরি করছে। ইউক্রেন আত্মসমর্পণ করতে চাইছে না। তাই সামরিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই যুদ্ধ রাশিয়ার জন্য দীর্ঘ পথ হবে।

রাশিয়া কিয়েভ দখল করতে পারলেও সবাই যদি রাশিয়ার বিপক্ষে থাকে তাহলে এর শেষ হবে কীভাবে? রাশিয়ানরা এই যুদ্ধ চায় না। এই যুদ্ধ পুতিনের তৈরি। তাই রাশিয়ানরা পুতিনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে। যদিও এই বিরুদ্ধ আন্দোলন সেখানে প্রশাসনের দ্বারা খুব বেশি গ্রহণযোগ্য নয়। এই বিশাল জনতা ক্রেমলিন থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দূরে প্রতিবাদে জড়ো হয়েছে। রাশিয়ায় প্রতিবাদ করলে কী হয় তা জানেন।

কিন্তু যদি মানুষ বেশি সংখ্যায় বিপক্ষে থাকে তখন কী করা যায়। এমনকি বিখ্যাত রাশিয়ান ব্যক্তিত্বরা ইউক্রেনের উপর পুতিনের আক্রমণ ও যুদ্ধের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন। এখন পুতিন ব্যাকফুটে থাকায় রুশ কর্তৃপক্ষ রাস্তার প্রতিবাদ নিষিদ্ধ করেছে। অন্যদিকে পুতিন রাশিয়াতে ফেসবুকে নিষিদ্ধ করেছে। পুতিনের মানসিক স্বাস্থ্য প্রশ্নবিদ্ধ। পুতিনের প্রাক্তন সহকর্মীদের উদ্ধৃতি দিয়ে একটি জনপ্রিয় দৈনিকে এই খবর জানানো হয়েছে। পুতিন তার নিজের ভয় এবং চিন্তায় অনেক সময় ব্যয় করে বিচ্ছিন্ন বোধ করছেন।

যুদ্ধ ঘোষণার আগে অদম্য আত্মবিশ্বাসী ও প্রত্যয়ী মন নিয়ে পুতিন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে হস্তক্ষেপ না করার হুমকি দিইয়েছিলেন। এক’দুদিনের বদলে এখন দিন পেরিয়ে যাচ্ছে দখল নিতে। শেষ পর্যায়ে নিস্ফল ব্যাখ্যা দেবার প্রচেষ্টা যুদ্ধকে ন্যায্যতা দেওয়া। তার ন্যায্যতার প্রধানত দুটি পয়েন্ট- ইউক্রেনের ডি-নাজিফিকেশন এবং ডি-মিলিটারাইজেশনের জন্য। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই ন্যায্যতা মানতে প্রস্তুত নয়। ডি-নাজিফিকেশন অ্যাঙ্গেল অযৌক্তিক, কারণ ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট নিজেই ইহুদি যিনি হলোকাস্টে তার পরিবারকে হারিয়েছেন।

কিন্তু কেন পুতিন যুদ্ধ ঘোষণা করার জন্য এটিকে উত্থাপন করছেন? পুতিন যদি ইউক্রেনকে ন্যাটোতে যোগদান থেকে বিরত করার চেষ্টা করেন তবে অন্য অন্য বিষয়। ইরানের পারমাণবিক বোমা তৈরির প্রচেষ্টা ইসরায়েল হ্যাকিং, ব্ল্যাকআউট ইত্যাদির মাধ্যমে বাধাগ্রস্ত করেছিল। কিন্তু সমগ্র রাশিয়ান সেনাবাহিনী সহ পূর্ণ মাত্রার যুদ্ধ ঘোষণায় ইউএসএসআর সংস্কারের ভিন্ন এজেন্ডা রয়েছে।

ইউক্রেন বুঝতে পেরেছে ডিজিটালভাবে তারা রুশ আক্রমণকে দুর্বল করতে পারে। ইলন মাস্ক ইউক্রেনে স্টারলিঙ্ক পুনরুদ্ধার করেছেন, রাশিয়ান আগ্রাসনের কারণে ইন্টারনেট ব্যাহত হওয়ার পরে। ফেসবুক এবং গুগল রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মিডিয়াকে সামগ্রী নগদীকরণ থেকে বিরত রেখেছে। ক্রিপ্টো বিশ্লেষকরাও ক্রিপ্টোতে পুতিনের দখল বন্ধ করার আশা করছেন। রাশিয়া আন্তর্জাতিকভাবে নিন্দার সম্মুখীন হয়েছে যেমনটা আগে কখনো হয়নি।

President of Russia ব্রাত্য-

বিশ্ব জুডো বডি পুতিনকে তার সম্মানসূচক প্রেসিডেন্ট হিসেবে বরখাস্ত করেছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিচ্ছিন্নতার মুখে পড়তে যাচ্ছে রাশিয়া। ক্রীড়াবিদরা প্রকাশ্যে যুদ্ধের বিরুদ্ধে। ইউক্রেনে যখন শিশুরা অ্যালার্ম এবং বোমা হামলার ভয়ে ভীত হয়ে পড়ে, তখন এটিও একটি সমান্তরাল ক্ষতি। তাই রাশিয়ানদেরও সমান্তরাল ক্ষতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং কথা বলতে হবে।

ভারতের বিখ্যাত বুদ্ধিজীবীরা উপহাস করছিলেন প্রাক্তন কৌতুক অভিনেতা রাষ্ট্রপতি জেলেনস্কিকে। আজ Zelensky স্পষ্টভাবে শীর্ষে আছে। পুতিন বর্তমানে একটি রসিকতার চরিত্রে পরিণত হয়েছেন বলা যেতে পারে। অন্য দেশের অস্ত্র সরবরাহ করা এবং ইউক্রেনেকে সমর্থন আরও শক্তিশালী হওয়ার সাথে সাথে এই লড়াইটি এখনো চলেছে। পুতিনের সহজ জয়ের স্বপ্ন চুরমার হয়ে গেছে। জেলেনস্কি আমাদের শেখালেন সংকল্পের শক্তি, অপশক্তির বিরুদ্ধে, এমনকি পরাজয়ের মুখেও হাল ছেড়ে দেবেন না।

যুদ্ধ- জয় পরাজয়-

যুদ্ধ- জয় পরাজয়-এ যদি রাশিয়া সফল হয়, আগামীকাল অন্য দেশ, চীন তাইওয়ান বা অন্যান্য জায়গায় আগ্রাসন চালাতে পারে। সেজন্য পুতিনকে থামানো প্রয়োজন। ইউক্রেনের জন্য আন্তর্জাতিক সমর্থন দেখতে খুব ভালো লাগছে। যা গণতন্ত্রের স্বার্থেই সঠিক ও অত্যন্ত জরুরী।

আপনার এই লেখটি কেমন লাগলো অবশ্যই কমেণ্টবাক্সে জানান। বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন যারা পুতিনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। আমাদের উদ্দেশ্য হল উন্নত মানসিকতায় সমৃদ্ধ উদারকে সমর্থন করা। কোন অপশক্তিকে নয়। আগ্রাসী মানসিকতার অবসানে জয় হোক সত্যের, জয় হোক আদর্শের, সহানুভূতির, বন্ধুত্ত্বের। ধন্যবাদ।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.