Rose Day 2021

Rose Day 2021 in Bengali | Welfare of Cancer Patients | বিশ্ব গোলাপ দিবস 2021

বিশ্ব গোলাপ দিবস(Rose Day) বলতে সকলেই 7ই ফেব্রুয়ারি কথা বলবেন। 14ই ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে(Valentines Day), আর তারই সূচনায় 7ই ফেব্রুয়ারি গোলাপ দিবস(Rose Day)। কিন্তু বছরের অন্য আরেকটা দিন গোলাপ দিবস হিসেবে পরিচিত। তা হল 22শে সেপ্টেম্বর- (The World Rose Day)।

কেন 22শে সেপ্টেম্বরকে দ্য ওয়ার্ল্ড রোজ ডে(the world Rose Day) বলা হয়?

আগামী 22 শে সেপ্টেম্বর 2021 সারা বিশ্বের ক্যান্সার রোগীদের স্বাস্থ্যের মানোন্নয়নের সংকল্প গ্রহণের দিন। তাদের সহায়তা করার দিন, সাহস জোগানোর দিন, অসহায় ক্যান্সার রোগীদের মানসিক ভরসা জোগানোর দিন। দুরারোগ্য ব্যাধি সারা বিশ্বকে যেভাবে পর্যুদস্ত করছে তার বিরুদ্ধে মিলিত হয়ে মোকাবেলা করার দিন।

হিস্ট্রি অফ দা ওয়ার্ল্ড রোজ ডে-

মেয়েটির নাম মেলিন্ডা রোজ। কানাডার অধিবাসী। বেশ হাসিখুশি চটপটে আর পাঁচটা বাচ্চার মতোই। মা-বাবার বড় আদরের। কানাডার অর্থনৈতিক স্বচ্ছল পরিবারে অভাবের সেরকম কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু কখন কার কপালে কি জোটে কারো আগাম সে খবর গোচরে থাকেনা। মাত্র 12 বছর বয়সে ধরা পড়ল ব্লাড ক্যান্সার। অ্যাসকিনস্ টিউমার নামে এক বিরল ব্লাড ক্যান্সার। পরিবারের আর্থিক সামর্থের কাছে রোগই জয়লাভ করলো। উন্নত দেশের স্বাস্থ্য পরিষেবা, উন্নত চিকিৎসাও হারতে বসেছে।

এদিকে রোজ তার মানসিক শক্তি বৃদ্ধির আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। যেখানে চিকিৎসা ওষুধ পত্র সেখানে হার মানে সেখানে মানসিক শক্তি বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তাকে অস্বীকার করা যায় না। তার মনকে ক্যান্সার রোগ থেকে দূরে, অন্য স্থানে নিয়ে যাবার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

সে তার লেখার দিকে মন দিল। গল্প, কবিতা, চিঠিপত্র এবং তার দৈনন্দিন ডায়েরি। লেখার বেশিরভাগই ক্যান্সার রোগীদের উদ্দেশ্যে। তার পরিচিত অপরিচিত কাছাকাছি বা দূরে যত ক্যান্সার রোগীর খবর সে পেয়েছে, তাদের মনোবল বৃদ্ধির জন্য মাত্র 13 বছর বয়সে রোজ লেখে যে তাদের  তাদের পাশে আছে।

আশ্চর্য দৃঢ়তা, সাহস। যে জীবনকে উৎসর্গ করেছিল ক্যান্সারের কাছে, সে কিনা অন্যান্য ক্যান্সার রোগীদের মানসিক দৃঢ়তা প্রদানের জন্য সাহস যোগায। এ এক বিচিত্র দৃষ্টান্ত সৃষ্টিকারি খুদে, অসমসাহসি। রোজকে ফুর্নিশ না জানিয়ে পারা যায় না।

কিন্তু জীবন তো মৃত্যু দিকে ছোটে। শেষের দিকে ডাক্তার মাত্র এক সপ্তাহ সময় দিয়েছিল। চরম যন্ত্রণা কষ্টদায়ক জীবনযাপনেও ক্ষীণ শরীরের শক্তি জুগিয়ে মেলিন্ডা শেষ সাত দিনের সীমানা অতিক্রম করে ছয় মাস পর্যন্ত টেনে নিয়ে গিয়েছিল তার জীবনকে।

অবশেষে তিন বছরের সমস্ত লড়াইয়ের শেষে মাত্র 16 বছর বয়সে চলে গেল না ফেরার দেশে। সালটা ছিলো 1996।

কিন্তু এখানেই শেষ নয়, এখান থেকে রোজ ডে’র শুরু-

‘ব্যথায় ব্যথায় মন ভরে যায়।’ নিঃস্ব হয়ে যাওয়া পরিবার হারিয়েছে সন্তান। কিন্তু হারায়নি তাদের সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা। তারা প্রতিবছর মেলিন্ডার জন্মদিন অর্থাৎ 22শে সেপ্টেম্বর এলাকার ক্যান্সার রোগীদের আরোগ্য ও শুভকামনায় তাদের হাতে তুলে দিতে লাগল হাতে তৈরি করা কার্ডসহ গোলাপ, যা তাদের মনোবল বৃদ্ধি করা সহজপাঠ। বেঁচে থাকার আশ্বাস দেওয়ার সাথে সাথে রোগীদের পাশে থাকার কর্মসূচি।

ধীরে ধীরে তাদের এই সাহসী সব সমাজসেবার ঘটনা এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলেকে ছাপিয়ে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়তে লাগল। অবশেষে সারাবিশ্ব 22শে September দিনটিকে ক্যান্সার রোগীদের শুভকামনা দিবস হিসেবে বিশ্ব গোলাপ দিবস হিসাবে পালন করতে লাগলো। বিশ্ব গোলাপ দিবস পালনের কর্মসূচি। এলাকা থেকে এলাকাসহ হাসপাতালে ক্যান্সার রোগীদের কাছে এদিন এক বিশেষ উৎফুল্ল, উৎকর্ষ, আনন্দ মুখর দিন।

বিশ্ব গোলাপ দিবস 2021- এ আমাদের অভিপ্রায়(Our Wish on the World Rose Day 2021)-

শুধু একটা দিনই নয় বছরের প্রতিটি দিবস ক্যান্সার রোগীদের পাশে থেকে মনে বল, সাহস যুগিয়ে তাদের আনন্দে মাতোয়ারা করে রাখা উচিত। ওষুধপত্র, কেমোথেরাপি, রেডিও থেরাপির মতো পদ্ধতির সাথে মানসিক শক্তির প্রয়োজনীয়তাকে গুরুত্ব দেওয়া জরুরি।

সরকারের কাছে রোজ ডে 2021(the world Rose Day 2021)- এর আবেদন-

বর্তমানে ক্যান্সার চিকিৎসার খরচ যেভাবে বেড়ে চলেছে তাতে সাধারণ বাড়িতো দূর, যথেষ্ট শক্ত আর্থিক ভিত যুক্ত পরিবারগুলির নাজেহাল অবস্থা। দুস্থ পরিবারের কথা এখানে আসেই না। তারা একেবারেই নিঃস্ব। তাই এই রোগের চিকিৎসা বিনামূল্যে হওয়া প্রয়োজন। সর্বসাধারণের জন্য কেমোথেরাপি, রেডিও থেরাপি বা অপারেশনের জন্য যাকিছু বন্দোবস্ত সবই সরকারিভাবে হওয়া বাঞ্ছনীয়। প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা চলাকালীন চিকিৎসার ব্যয়ভার সরকারকে গ্রহণ করা উচিত।

রোগ যেমন তার খরচও সেরকম। সে রোগের প্রকৃত কোনো মূল্য হয় না। বলতে চাইছি তার মূল্য কোন মানুষের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়। অতএব এই চিকিৎসা বেসরকারি ক্ষেত্রেও বিনামূল্যে হওয়া বাঞ্ছনীয়।

সরকার সাধারণ মানুষের জন্য অসংখ্য পরিসেবা দিচ্ছে। কখনো স্বল্পমূল্যে কখনো বা বিনামূল্যে। মানুষ ধন্য ধন্য করছে। কিন্তু ক্যান্সারের মতো রোগের ক্ষেত্র বিশাল ও অতি ভয়ানক। সরকারি অন্যান্য চিকিৎসা ক্ষেত্র এত সংকুচিত সেখানে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসা করানোর ভরসা সাধারণের কাছে একেবারে তলানিতে ঠেকে। সরকারি চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রতি আস্থা কবে ফিরবে বলা খুবই মুশকিল। কিংবা ফিরবে কি’না তারও আগাম কোন বার্তা পাওয়া যাচ্ছে না।

Read More-

এদিকে স্বাস্থ্যসাথী, আয়ুষ্মান ভারত- এর মত বীমার সুবিধা পেতে পেতে রোগীর অবস্থা তো দূর পরিবারের সুস্থ ব্যক্তিরা অসুস্থ হয়ে পড়ার শামিল।

আমাদের কি করনীয় তা যেমন জোর করে চাপিয়ে দেওয়া যায় না। সেরকম সরকারেরও তাদের ইচ্ছা-অনিচ্ছা জনগণের উপর চাপিয়ে দেওয়া মেনে নেওয়া যায় না। জনগণ রোগীদের পাশে সশরীরে বা ভার্চুয়ালি যেভাবেই হোক না কেন থাকার চেষ্টা করাটাই আরো পাঁচজনকে অনুপ্রাণিত করে। যার বাড়িতে রোগী আছে সে জানে- রোগ এক একটা পরিবারকে কোথায় নামিয়ে আনে। কি পরিনতি হয় পরিবারের সদস্যদের। তাই সকলেই সকলের পাশে থাকার আশ্বাস- সম্পূর্ণ না হলেও কিছুটা স্বস্তি, কিছুটা ভরসা জোগাক।

দুরারোগ্য ব্যাধি নিপাত যাক। আপনার এলাকার পাশাপাশি সারাবিশ্ব রোগ মুক্ত হোক। বিশ্ব ক্যান্সার রোগী শুভকামনা বিশ্ব গোলাপ দিবস 2021(Welfare of Cancer Patients, Rose Day 2021)- এ সকলের সুস্বাস্থ্য ও নিরোগ জীবন কামনা করে শেষ করছি। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *