সমাজ বদলানো ভারতীয় অর্থনীতি- Future Of Cryptocurrency In India 2023 New Craze

ভারতে ক্রিপ্টোকারেন্সির ভবিষ্যত কি(Future of Cryptocurrency in India) অন্ধকারময়, না’কি আলোর দিশা দেখাবে? এই নিবন্ধে তার কিছু আভাস দেওয়া হচ্ছে। যারা ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে চিন্তিত আছেন বা আগামীতে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে ইনভেস্ট করতে চাইছেন তাদের জন্য এই নিবন্ধটি ফলপ্রদ হবে বলে আশা করা যায়।

ক্রিপ্টোকারেন্সি ভারতে এবং সারা বিশ্বে ক্রয়, বিক্রয় এবং লেনদেনের মতো আর্থিক ক্রিয়াকলাপ সহজতর করার জন্য বিনিয়োগকারীদের মধ্যে জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। ইউনাইটেড নেশনস কনফারেন্স অন ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট রিপোর্ট 2021 অনুসারে, 2021 সালে 7.3% ভারতীয়দের ক্রিপ্টোকারেন্সির মালিকানা ছিল।

Page Contents

Future Of Cryptocurrency In India

একদিকে এটি অত্যন্ত প্রশংসনীয় যে ভারত জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই ডিজিটাইজেশনের দিকে দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে, অন্যদিকে অন্তর্নিহিত উদ্বেগ যা অবিলম্বে মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন তা হল যে বর্তমানে, ক্রিপ্টো সম্পদের বাজার পরিচালনা করার জন্য ভারতের কোনো নিয়ন্ত্রক কাঠামো নেই।

Future Of Cryptocurrency In India

একটি নিয়ন্ত্রক কাঠামোর অনুপস্থিতি কেবলমাত্র সেই ব্যবসাগুলির জন্য অনিশ্চয়তা তৈরি করে না, বরং বিনিয়োগকারীদের প্রতারণার পথও উন্মুক্ত করে। একটি অনিয়ন্ত্রিত ইকোসিস্টেম অর্থ পাচার, জালিয়াতি এবং সন্ত্রাসে অর্থায়ন সহজতর করতে পারে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি কি? | What is Cryptocurrency?

Future Of Cryptocurrency In India বোঝার আগে ক্রিপ্টোকারেন্সি কাকে বলে এই বিষয়ে জানা আবশ্যক। ক্রিপ্টোকারেন্সি হল বিনিময়ের একটি মাধ্যম, যেমন রুপি বা ইউএস ডলার। তবে এটি ডিজিটাল ফর্ম্যাটে বিনিময় হয। এনক্রিপশন কৌশল ব্যবহার করে উভয়ই আর্থিক ইউনিট তৈরি নিয়ন্ত্রণ এবং অর্থের বিনিময় যাচাই করার পর কারেন্সি হস্তান্তর করার অনুমতি পাওয়া যায়।

বিটকয়েনকে বিশ্বের সেরা পরিচিত ক্রিপ্টোকারেন্সি হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং বাজার মূলধন অনুসারে এটি বিশ্বের বৃহত্তম।

ক্রিপ্টোকারেন্সির নিয়ন্ত্রক

বেশিরভাগ ক্রিপ্টোকারেন্সি জাতীয় সরকার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় না। ক্রিপ্টোকারেন্সি বিকল্প মুদ্রা বা আর্থিক বিনিময়ের মাধ্যম হিসাবে বিবেচিত হয় যা রাষ্ট্রীয় আর্থিক নীতির সুযোগ ও আওতার বাইরে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি স্বীকৃত দেশ

2021 সালের সেপ্টেম্বরে, এল সালভাদর বিশ্বের প্রথম দেশ হয়ে বিটকয়েনকে আইনি দরপত্র হিসাবে স্বীকৃতি দেয়।

ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ন্ত্রণে ভারতের অবস্থান-

ক্রিপ্টোকারেন্সির বিষয়টি খুব পুরোনো বিষয় নয়। অথচ এটি সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে ছিল। এই পর্যায়ে আলোচনর ফলেই আমরা ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে ভারতের ভবিষ্যত পরিকল্পনা(Future Of Cryptocurrency In India) জানতে সুবিধা হবে।

2017 সালে, ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (আরবিআই) একটি সতর্কতা জারি করেছে যে ভার্চুয়াল মুদ্রা বা ক্রিপ্টোকারেন্সি ভারতে আইনি দরপত্রের মধ্যে পরে না। তবে সেই সঙ্গে বলা যায় ভার্চুয়াল মুদ্রার ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞাও জারি হয়নি।

2019 সালে, RBI ঘোষণা করেছিল ক্রিপ্টোকারেন্সির ট্রেডিং, মাইনিং, ধারণ বা স্থানান্তর/ব্যবহার ভারতে আর্থিক জরিমানা বা/এবং 10 বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। RBI আরও ঘোষণা করেছে যে ভবিষ্যতে ভারতে আইনি দরপত্র হিসাবে ডিজিটাল রুপি চালু করতে পারে।

2020 সালে, ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আরবিআই দ্বারা আরোপিত ক্রিপ্টোকারেন্সির উপর নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে দিয়েছে।
2022 সালে, ভারত সরকার কেন্দ্রীয় বাজেট 2022-23-এ স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছে যে-কোনও ভার্চুয়াল মুদ্রা/ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পদের স্থানান্তর 30% কর ধার্য করা হবে। এখান থেকে বোঝা যায় ভারতে ক্রিপ্টোকারেন্সি বৈধতা পাচ্ছে।

অন্যদিকে ভার্চুয়াল সম্পদ/ক্রিপ্টোকারেন্সি আকারে উপহার পেলে প্রাপকের হাতে প্রাপ্ত কারেন্সির উপর ট্যাক্স ধার্য করা হবে।

জুলাই 2022-এ, ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (আরবিআই) দেশের আর্থিক ও আর্থিক অবস্থার উপর অস্থিতিশীল প্রভাব উল্লেখ করে ক্রিপ্টোকারেন্সি নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করেছিল।

ক্রিপ্টো-কারেন্সির অন্ধকার দিকগুলি

বিমূর্ত প্রকৃতি:

ক্রিপ্টোকারেন্সি অনুমানমূলক ও বিমূর্ত। উচ্চ পরিমাণে বিনিয়োগ বাজারের অস্থিরতার দিকে পরিচালিত করে। যার অর্থ দাম ওঠানামা করে এবং এর ফলে মানুষ বড় ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে।

নির্ভরযোগ্যতা এবং নিরাপত্তা:

লেনদেনের একটি ডিজিটাল পদ্ধতির বৈশিষ্ট্যের জন্য ক্রিপ্টোকারেন্সি হ্যাকার, সন্ত্রাসের অর্থায়ন এবং ড্রাগ লেনদেনের জন্য একটি খুব সাধারণ প্ল্যাটফর্ম হয়ে উঠেছে। এটি মানুষের মধ্যে বৃহত্তর পরিমাণে অনীহা, ক্লান্তি ও অবসাদ নিয়ে এসেছে কারণ এটি কম নিরাপত্তা এবং নির্ভরযোগ্যতার অভাব নিয়ে আসে। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে Wannacry ভাইরাস বিটকয়েনে মুক্তিপণ অর্থ আদায়ের জন্য অপরাধীরা ব্যবহার করেছিল।

নিয়ন্ত্রক কাঠামোর অভাব:

ভারত সরকার ক্রিপ্টোকারেন্সির প্রতি নজর রাখছে এবং অপেক্ষা করার নীতি অনুসরণ করছে। নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের অনুপস্থিতির কারণে বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষা এবং অর্থনীতিতে অর্থের চলাচলে প্রতারণার হুমকির সম্ভাবনা বেড়েছে।

লোভাতুর বিজ্ঞাপন:

ক্রিপ্টো মার্কেটে বিজ্ঞাপনের বিস্ফোরণ ঘটেছে যাতে লোকেদের চিন্তাভাবনাকে প্রলুব্ধ করা যায়। কারণ এটি অর্থ উপার্জনের একটি দ্রুত উপায় হিসাবে দেখা হয়। যাইহোক, উদ্বেগ রয়েছে যে এই প্রচেষ্টাগুলি “অতিপ্রতিশ্রুতি” এবং “অস্বচ্ছ বিজ্ঞাপন” এর মাধ্যমে তরুণদের বিভ্রান্ত করে।

স্টক-মার্কেট ইস্যুস:

সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া (SEBI) উল্লেখ করেছে যে এটির ক্রিপ্টোকারেন্সি “ক্লিয়ারিং এবং সেটেলমেন্ট” এর উপর নিয়ন্ত্রণ নেই এবং এটি স্টকের মতো কাউন্টারপার্টি গ্যারান্টি দিতে পারে না।

তাছাড়াও, ক্রিপ্টোকারেন্সিকে মুদ্রা, পণ্য বা নিরাপত্তা হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়নি।

মাপযোগ্যতায় উদ্বেগ:

ক্রিপ্টোর স্কেলেবিলিটি বা মপযোগ্যতায় একটি প্রধান উদ্বেগের বিষয়। কারণ এটি ব্লকচেইন প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে। ব্লকচেইন টেকনোলজিতে, ডেটা স্টোরেজ মেকানিজম static বা স্থির, অর্থাৎ এটি পরিবর্তন করা যায় না এবং যেহেতু চাহিদা বাড়ছে, স্টোরেজ ক্ষমতা সীমিত থাকে।

মানি লন্ডারিং:

মানি লন্ডারিংএর একটি বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। ধূর্ত লোকেরা অর্থ পাচারে বিনিয়োগ শুরু করতে পারে এবং এটি খুব সহজ কারণ কেউ কোনও জবাবদিহিতা ছাড়াই দেশ থেকে দেশে অর্থ পাঠাতে পারে।

অর্থনৈতিক ভারসাম্যহীনতার সম্ভাবনা:

ক্রমবর্ধমান ক্রিপ্টো কারেন্সি বাজার ভারতীয় অর্থনীতিতে অর্থের বৃত্তাকার প্রবাহকে ভারসাম্যহীন করতে পারে। ক্রিপ্টোকারেন্সি তৈরি করা অর্থনীতি প্রকৃত নগদ কীভাবে তৈরি হয় তার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। উদাহরণস্বরূপ, ভারতে, ন্যূনতম রিজার্ভ সিস্টেম বজায় রাখার পরেই কেবলমাত্র আরবিআই নগদ তৈরি করার ক্ষমতা রাখে। এতে চাহিদা ও যোগানের ভারসাম্য তৈরি হয়।

যাইহোক, ক্রিপ্টোকারেন্সি আর্থিক প্রাতিষ্ঠানিক প্রবিধানের উপর নির্ভর করে না কিন্তু এনক্রিপ্ট করা এবং সুরক্ষিত যা পূর্বনির্ধারিত অ্যালগরিদম হারের উপর অর্থের সরবরাহ বৃদ্ধি করার পক্ষে অন্তরায় বা কঠিন করে তোলে।

কোন বিচার ব্যবস্থা ও আইন নেই:

বর্তমানে এমন কোন ফোরাম নেই, যেখানে একজন ব্যবহারকারী সম্ভবত ক্রিপ্টো সম্পদের সাথে সম্পর্কিত যেকোন সাহায্য বা অভিযোগের প্রতিকারের ব্যবস্থার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন। যার ফলস্বরূপ ভোক্তারা লেনদেন এবং তথ্যমূলক ঝুঁকি থেকে মুক্তি পাবেন।

এগিয়ে যাওয়ার পথেই Future Of Cryptocurrency In India

এক্ষনে আমরা ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে ভারতের ভবিষ্যত পরিকল্পনা(Future Of Cryptocurrency In India) কি হবে বা কি হওয়া উচিত সে সম্বন্ধে কিছু ধারণা পাব। সেগুলি নিচে বিস্তারিত আলোচিত হল-

ক্রিপ্টোকারেন্সি সংজ্ঞায়িত করা:

প্রাসঙ্গিক জাতীয় আইনের অধীনে ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলিকে সিকিউরিটিজ বা অন্যান্য আর্থিক উপকরণ হিসাবে স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করা উচিত।

ক্রিপ্টোর সাথে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম লিঙ্ক করা:

ভারতের স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমকে ক্রিপ্টোকারেন্সি এবং ব্লকচেইন প্রযুক্তির দ্বারা পুনরুজ্জীবিত করা যেতে পারে। ব্লকচেইন ডেভেলপার থেকে ডিজাইনার, প্রোজেক্ট ম্যানেজার এবং ব্যবসায়িক বিশ্লেষক থেকে প্রবর্তক এবং বিপণনকারীদের কাজের সুযোগ তৈরি করতে পারে।

আন্তর্জাতিক সহযোগিতার জন্য লিঞ্চপিন:

যেহেতু ক্রিপ্টো সম্পদগুলি জাতীয় সীমানা অতিক্রম করে, তারা আর্থিক বাজার পরিচালনার আন্তর্জাতিক সমন্বয়ের জন্য একটি লিঞ্চপিন হিসাবে কাজ করে।

যাইহোক, ভারতের মতো অনেক উদীয়মান এবং উন্নয়নশীল অর্থনীতিতে ক্রিপ্টো-অ্যাসেট রেগুলেশন এখনও প্রাথমিক অবস্থায় রয়েছে। ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রবাহ নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি ঝুঁকি-ভিত্তিক এবং প্রসঙ্গ-নির্দিষ্ট আন্তর্জাতিক সহযোগিতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ভারতের CBDC-

ভারতের অর্থমন্ত্রী ডিজিটাল রুপির আকারে ভারতের জন্য একটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডিজিটাল মুদ্রা (CBDC) চালু করার ঘোষণা দিয়েছেন। এটি ভারতীয় ডিজিটাল অর্থনীতিতে একটি বড় উত্সাহ দেবে। ডিজিটাল মুদ্রা আরও দক্ষ এবং সস্তা মুদ্রা ব্যবস্থাপনা ব্যবস্থার দিকে পরিচালিত করবে।

যাইহোক, ব্লকচেইন প্রযুক্তির সম্পূর্ণ সুবিধা পেতে অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির সাথে সামঞ্জস্য রেখে CBDC থাকা উচিত।

FAQS

Which cryptocurrency has best future in India?

বলা খুব মুশকিল। তবে এই মুহূর্তে Bitcoin (BTC), Ethereum (ETH), Cardano (ADA), Polkadot (DOT), Chainlink (LINK) ইত্যাদি খুবই জনপ্রিয়। ভারত কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডিজিটাল মুদ্রা (CBDC) চালু করলে এটির জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা যায়।

Which cryptocurrency will rise in 2023 in India?

ইথেরিয়াম। ক্রিপ্টো উত্সাহীদের মতে, 2022 এবং 2023 সালে মার্কেট ক্যাপ অনুসারে দ্বিতীয় বৃহত্তম ক্রিপ্টো বাড়তে পারে৷

Is India going to adopt cryptocurrency?

ক্রিপ্টো গ্রহণে ভারত চতুর্থ স্থানে রয়েছে। জুলাই 2021-জুন 2022 পর্যন্ত $172Bn লেনদেন হয়েছে। ভারতের ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেন জুলাই 2021 এবং জুন 2022 এর মধ্যে $172 বিলিয়নে বেড়েছে। ভারত ক্রিপ্টো ক্রিয়াকলাপে দক্ষিণ এশিয়া এবং ওশেনিয়া অঞ্চলকে নেতৃত্ব দিয়ে চলেছে৷

How long will cryptocurrency last?

গড় ক্রিপ্টো  চার বছর পর্যন্ত নিম্নমুখী হতে পারে, যার মানে 2026 সাল পর্যন্ত ক্রিপ্টো পুনরুদ্ধার নাও হতে পারে।

Which crypto will boom in 2022?

ক্রিপ্টোকারেন্সি দিয়ে ধনী হওয়া অবশ্যই একটি অসম্ভব প্রচেষ্টা নয়। আসলে, অনেক ক্রিপ্টো উত্সাহী আছেন যারা তাদের বিনিয়োগ থেকে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার উপার্জন করেছেন। যাইহোক, এটি সর্বদা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে ক্রিপ্টোতে বিনিয়োগ করা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *