পশ্চিমবঙ্গ কি বাঁচবে- Insufficient Development of West Bengal

Insufficient Development of West Bengal: পশ্চিমবঙ্গ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়ন অগ্রগতিতে অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ এবং দুর্বলতার সম্মুখীন হচ্ছে। এটি সামগ্রিক অর্থনৈতিক বৃদ্ধি এবং উন্নয়নের সাথে মানুষের জীবনযাপনকেও প্রভাবিত করছে। আপাত দৃষ্টিতে বাংলা হাসছে মনে হলেও ভবিষ্যৎ যে কোথায় যাবে তা ভবিষ্যৎই উত্তর দেবে। পশ্চিমবঙ্গের অর্থনীতির কিছু দুর্বল দিকগুলি তুলে ধরা হল। সবক্ষেত্রেই সকলকে একমত হতে হবে তা নয়, তবে সাধারণ কিছু নিয়ম সর্বজনগ্রাহ্য হতে বাধ্য।

Table of Contents

Insufficient Development of West Bengal

Insufficient Development of West Bengal

স্বীকারোক্তি- Insufficiency Development and Future of West Bengal নিবন্ধটি সম্পূর্ণ শিক্ষামূলক নিবন্ধ। এটি স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা অবলীলায় ব্যবহার করতে পারেন। নিবন্ধের কোনো অংশ সম্পূর্ণ বা আংশিক অর্থনৈতিক, সামাজিক বা রাজনৈতিক ঘটনাক্রমের সাথে মিল থাকলে তা নিছকই কাকতালীয়।

শিল্প বৃদ্ধির নিম্নগতি

ঐতিহাসিকভাবে শিল্পায়িত হওয়া সত্ত্বেও, পশ্চিমবঙ্গ নতুন শিল্প এবং বিনিয়োগ আকর্ষণ করার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়েছে। অন্যান্য কিছু রাজ্যের তুলনায় শিল্পের বৃদ্ধি মন্থর হয়েছে, যার ফলে সম্ভাব্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং অর্থনৈতিক সম্প্রসারণ সীমিত হয়েছে।

বেকারত্ব এবং নিম্ন কর্মসংস্থান

Image by 1388843 from Pixabay

রাজ্যটি উচ্চ স্তরের বেকারত্ব এবং স্বল্প-বেকারত্বের সাথে লড়াই করেছে। কর্মশক্তির দক্ষতা এবং চাকরির বাজারের চাহিদার মধ্যে অমিল এই সমস্যাটিতে অবদান রেখেছে।

কৃষি উৎপাদনশীলতা

কৃষি একটি গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন খাত। কিন্তু উৎপাদনশীলতার মাত্রা তুলনামূলকভাবে কম। অদক্ষ ও অবৈজ্ঞানিক ভূমি ব্যবহার, আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির অভাব এবং ঋণ ও বাজারে সীমিত প্রবেশাধিকার কৃষি খাতের বৃদ্ধিকে বাধাগ্রস্ত করেছে।

অবকাঠামোর ঘাটতি

রাস্তা, পরিবহন, নেটওয়ার্ক এবং বিদ্যুৎ সরবরাহ সহ অপর্যাপ্ত অবকাঠামো শিল্প এবং নগর উন্নয়ন উভয়ের জন্যই চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে। অপর্যাপ্ত অবকাঠামো বিনিয়োগ ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে বাধা দিতে পারে।

শ্রমিক অসন্তোষ

রাষ্ট্র শ্রম অসন্তোষ, ধর্মঘট এবং ব্যাঘাতের ইতিহাস অনুভব করেছে। যা ব্যবসা এবং বিনিয়োগকারীদের সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে বাধা দিতে পারে। এটি কখনও কখনও একটি প্রতিকূল ব্যবসা পরিবেশের আবহাওয়া তৈরি করছে।

যেমন সম্প্রতি সরকারী কর্মীদের মহার্ঘ ভাত নিয়ে সরকারের মুখ ফিরিয়ে নেওয়া, অস্থায়ী কর্মীদের চিরদিন অস্থায়ী রেখে দেওয়ার মানসিকতা বা নতুন কর্মী নিয়োগের মতো নানা ইসু নিয়ে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ শ্রমিক সংগঠনের জন্ম পশ্চিমবঙ্গের করুন অবস্থাকে চিহ্নিত করে।

সরকারের ঘরে টাকা নেই, সেই মুহুর্তেই এম এল এ ও মন্ত্রীয়ের ভাতা একধাক্কায় চল্লিশ হাজার টাকা বৃদ্ধি করে সরকারের মানসিকতার দিকটিকে প্রশ্নের সামনে দাঁড় করিয়েছে।

জটিল আমলাতন্ত্র

জটিল আমলাতান্ত্রিক পদ্ধতি প্রায়ই ব্যবসা করার সহজ সরলতাকে এবং প্রয়োজনীয় ছাড়পত্র প্রাপ্তিতে বাধা দেয়। যা বিনিয়োগ এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে নিরুৎসাহিত করে।

ঋণের বোঝা

রাজ্যটি একটি উল্লেখযোগ্য ঋণের বোঝা বহন করছে। যার প্রভাব এর আর্থিক স্বাস্থ্য এবং উন্নয়ন উদ্যোগের জন্য সম্পদ বরাদ্দ করার ক্ষমতাকে সীমিত করে। রাজ্যটির ২০১০-১১ অর্থবর্ষে ঋণের পরিমাণ ছিল ১৮৭৩৮৭ কোটি টাকা, ২০২২-২৩ অর্থবর্ষে আনুমানিক ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৫৮৬৪৩৮ কোটি টাকা

স্বাস্থ্যসেবা এবং শিক্ষার ফাঁক

যদিও পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্যসেবা এবং শিক্ষায় উন্নতি করেছে, তথাপি এখনও গুণমান এবং পরিষেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে, বিশেষত গ্রামীণ এলাকায় ফাঁক রয়েছে। সুস্থিত অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ও উন্নয়নের জন্য একটি সুস্থ ও শিক্ষিত জনশক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সরকারী হাসপাতালের উন্নয়নের দিকটি আংশিক নজর না দিয়েই প;ব; সরকার স্বাস্থ্যসাথী নামে সরকারী স্বাস্থ্যবীমা ব্যবস্থা করেছে নির্বিশেষে ধনী গরীব সকলের জন্য। সেখানেও প্রবল ভিড়ের জন্য বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে এক বিশাল চাপের সৃষ্টি হচ্ছে। স্বাস্থ্যসাথী স্বাস্থ্যবিমার সঠিক সদ্ব্যবহার হচ্ছে না।

কৃষির উপর নির্ভরশীলতা

জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ কৃষিতে নিয়োজিত। জলবায়ু পরিবর্তন, বাজারে মূল্যের ওঠানামা এবং প্রযুক্তিগত উন্নতির অভাবের মতো বিভিন্ন কারণের জন্য কৃষি নির্ভরশীলতা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা

কখনও কখনও, রাজনৈতিক কারণ এবং অস্থিতিশীল নীতি বাস্তবায়ন এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণকে প্রভাবিত করে, অর্থনৈতিক পরিকল্পনা ও উন্নয়নকে প্রভাবিত করে। শাসক-বিরোধী রাজনৈনিক মতানৈক্য সামাজিক প্রেক্ষাপটে সাংঘাতিক রূপ আমরা দেখতে পাচ্ছি।

সরকারী প্রকল্প-

বর্তমানে সরকারি কিছু প্রকল্প আপাত দৃষ্টিতে সুন্দর ও লাভজনক মনে হলেও ভবিষতের জন্য খুব ভয়ংকর। বিশেষত বিনামূল্যের দ্রব্যাদির ফলাফল– স্বচ্ছল মধ্যবিত্ত, উচ্চ মধ্যবিত্ত ও অস্বচ্ছল নিম্নবিত্ত সহ সকল শ্রেণীকে কিছু পাইয়ে দেওয়া প্রকল্প আর্থিক বৈষম্য হ্রাসের পরিবর্তে বৃদ্ধিকেই উৎসাহিত করে। যেখানে নিম্নবিত্তদের বেশি জোর দেওয়া প্রয়োজন সেখানে অবলীলায় সকলকে এক সুতোয় মাপা হইতে বিপরীত হতে বাধ্য।

Insufficient Development of West Bengal to be Improved | Future of West Bengal Development

এটি লক্ষ্য করা গুরুত্বপূর্ণ যে এই দুর্বলতাগুলিকে মোকাবেলা করার জন্য নীতি সংস্কার, অবকাঠামো এবং মানব পুঁজিতে বিনিয়োগ, ব্যবসা করার সহজতাকে উন্নীত করা এবং শিল্প ও ব্যবসার উন্নতির জন্য একটি অনুকূল পরিবেশ গড়ে তোলার সাথে জড়িত বহুমুখী পদ্ধতির প্রয়োজন। এই চ্যালেঞ্জগুলি অতিক্রম করে পশ্চিমবঙ্গের সুস্থিত অর্থনৈতিক বৃদ্ধি এবং উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে।

উন্নয়নের জন্য পদক্ষেপ নিতে হবে-

পশ্চিমবঙ্গের উন্নয়নের জন্য একটি ব্যাপক এবং কৌশলগত পদ্ধতির প্রয়োজন। এই প্রয়োজনীয় শক্তি এবং সুযোগগুলিকে পুঁজি করে এর অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং অবকাঠামোগত চ্যালেঞ্জকে মোকাবেলা করবয়ে বলে আশা করা যায়। পশ্চিমবঙ্গের উন্নয়নের জন্য এখানে কিছু পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে, যা পশ্চিমবঙ্গের ভবিষ্যৎ উন্নয়নকে(Future of West Bengal Development) সর্বাঙ্গীন উজ্জ্বল করতে পারে।

শিল্প বৈচিত্র্য এবং বিনিয়োগ

ম্যানুফ্যাকচারিং, তথ্য প্রযুক্তি, কৃষি ব্যবসা এবং নবীকরনযোগ্য শক্তির মতো বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগকে স্বাগত জানানো প্রয়োজন। উদ্যোক্তা এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য শিল্প ক্লাস্টার এবং বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা অত্যন্ত জরুরী। দেশী ও বিদেশী উভয় ধরনের বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য সকলকে আন্তরিক আহ্বান এবং একটি অনুকূল ব্যবসায়িক পরিবেশ প্রদান করতেই হবে।

কৃষি আধুনিকীকরণ

কৃষি উৎপাদনশীলতা এবং মূল্য সংযোজন বৃদ্ধির জন্য আধুনিক কৃষি কৌশল, সেচ ব্যবস্থা এবং কৃষি প্রক্রিয়াকরণ সুবিধা বাস্তবায়ন দরকার। ফসলের ফলন উন্নত করতে এবং গ্রামীণ জীবিকাকে গুরুত্ব দেবার জন্য জৈব চাষ এবং সুস্থিত কৃষি অনুশীলনের প্রচার করুন।

রাজ্যের কৃষি খাত আধুনিকীকরণ, উন্নত চাষের কৌশল, বাজারে আরও ভাল অ্যাক্সেস এবং মূল্য শৃঙ্খলা ও নিয়ন্ত্রণ একীকরণের মাধ্যমে উপকৃত হতে পারে। কৃষি ব্যবসা এবং কৃষি প্রক্রিয়াকরণের উপর ফোকাস করলে কৃষি আয় এবং সামগ্রিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি উভয়ই বৃদ্ধি পাবে।

পরিকাঠামো উন্নয়ন

রাজ্যের মধ্যে এবং প্রতিবেশী অঞ্চলগুলির সাথে সংযোগ উন্নত করতে পরিবহন নেটওয়ার্ক, রাস্তা, বন্দর এবং শক্তি পরিকাঠামোতে বিনিয়োগ দরকার। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার সাথে সামঞ্জস্য রেখে সুষম নগরায়ণকে উন্নীত করার জন্য শহুরে পরিকাঠামো বিকাশ করা দরকার।

রাস্তা, পরিবহন, জ্বালানি এবং নগর উন্নয়ন সহ অবকাঠামোতে বিনিয়োগ শিল্পকে আকৃষ্ট করতে এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সহজতর করার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

দক্ষতা উন্নয়ন এবং শিক্ষা

উদীয়মান শিল্পের চাহিদা মেটাতে শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচীর মান বৃদ্ধি করা একান্ত প্রযজন। দক্ষতার ব্যবধান পূরণ করতে বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং শিল্পের সাথে অংশীদারিত্ব স্থাপন করা দরকার আছে। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য দক্ষ জনশক্তি অপরিহার্য। শিক্ষা এবং দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচী বৃদ্ধির প্রচেষ্টা উদীয়মান শিল্পের চাহিদার সাথে কর্মীবাহিনীকে একত্রীবদ্ধ করতে পারে।

ব্যবসায সরলিকরন এবং প্রশাসনিক সংস্কার

নিয়ন্ত্রক প্রক্রিয়াগুলিকে স্ট্রীমলাইনে এনে আমলাতান্ত্রিক প্রশাসনিক সংস্কার এবং বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে এবং উদ্যোক্তাকে উত্সাহিত করতে ব্যবসা করার কাঠিন্যকে সরল করার পদ্ধতিকে উন্নত করা প্রয়োজন। সরকারি পরিষেবাগুলিতে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা এবং দক্ষতা বাড়াতে ই-গভর্নেন্স উদ্যোগগুলি বাস্তবায়ন করুন।

পর্যটন এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য

পশ্চিমবঙ্গের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এবং ঐতিহাসিক স্থানগুলির পর্যটনকে উৎসাহিত করার সম্ভাবনা রয়েছে। অবকাঠামোতে বিনিয়োগ, ইকো-ট্যুরিজমের প্রচার এবং ঐতিহ্যবাহী স্থান সংরক্ষণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে।

দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক উভয় পর্যটকদের আকৃষ্ট করার জন্য আবাসন, পরিবহন এবং সাংস্কৃতিক আকর্ষণ সহ পর্যটন অবকাঠামো উন্নয়ন ও প্রচার দরকার। জাদুঘর, উত্সব এবং ঐতিহ্যবাহী স্থানগুলির মাধ্যমে রাজ্যের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ এবং প্রদর্শন করার ব্যবস্থা করা অত্যন্ত জরুরী।

স্বাস্থ্যসেবা এবং সমাজকল্যাণ

সমস্ত নাগরিকের জন্য মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবার অ্যাক্সেস উন্নত করতে স্বাস্থ্যসেবা পরিকাঠামো এবং পরিষেবাগুলিতে বিনিয়োগ দরকার। নারী, শিশু এবং বয়স্ক সহ দুর্বল জনগোষ্ঠীকে লক্ষ্য করে সামাজিক কল্যাণমূলক কর্মসূচি বাস্তবায়ন দরকার।

পরিবেশ সংরক্ষণ

সুস্থিত পরিবেশগত অনুশীলন বাস্তবায়ন এবং প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ এবং জীববৈচিত্র্য রক্ষার জন্য পরিবেশ বান্ধব উদ্যোগের প্রচার করুন। দূষণ মোকাবেলা করুন এবং একটি পরিষ্কার এবং স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি করতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার প্রচার করুন।

নবীকরনযোগ্য শক্তি গ্রহণ

জীবাশ্ম জ্বালানির উপর নির্ভরতা কমাতে এবং পরিবেশগত স্থায়িত্বে অবদান রাখতে সৌর এবং বায়ু শক্তির মতো নবীকরনযোগ্য শক্তির উত্সগুলিতে নজর ও বিনিয়োগকে অস্বীকার করা উচিত নয়।

শিল্প বৈচিত্র্য

পশ্চিমবঙ্গ নতুন শিল্প এবং বিনিয়োগ আকর্ষণ করার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে তথ্য প্রযুক্তি (আইটি), উত্পাদন এবং কৃষি ব্যবসার মতো খাতে। শিল্প ভিত্তিকে বৈচিত্র্যময় করার অব্যাহত প্রচেষ্টা কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিকে নিয়ে যেতে পারে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের (এসএমই) প্রচার

ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকারের উদ্যোগের বৃদ্ধির জন্য সহায়তা এবং প্রণোদনা প্রদান, যা কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং অর্থনৈতিক বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

স্টার্টআপ এবং উদ্ভাবনের জন্য পরিকাঠামো

উদ্যোক্তা, উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তিগত অগ্রগতি বাড়াতে ইনকিউবেশন সেন্টার, উদ্ভাবন কেন্দ্র এবং প্রযুক্তি পার্ক তৈরি কর যেতে পারে। বেকারদের স্বনির্ভরতার দিকে উত্সাহ দেবার জন্য সম্প্রতি সারা বিশ্বে ইনফরমেশন প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল রোজগারের পথগুলিতে দৃষ্টি দেওয়া দরকার।

এস ই জেড

ম্যানুফ্যাকচারিং এবং স্পেশাল ইকোনমিক জোন (SEZs): ম্যানুফ্যাকচারিং ক্লাস্টার এবং SEZs এর উন্নয়ন শিল্প প্রবৃদ্ধি বাড়াতে পারে। রপ্তানিকে উৎসাহিত করতে পারে এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করতে পারে।

তথ্য প্রযুক্তি এবং পরিষেবা

Image by StockSnap from Pixabay

পশ্চিমবঙ্গ নতুন শিল্প এবং বিনিয়োগ আকর্ষণ করার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে তথ্য প্রযুক্তি (আইটি), উত্পাদন এবং কৃষি ব্যবসার মতো খাতে। শিল্প ভিত্তিকে বৈচিত্র্যময় করার অব্যাহত প্রচেষ্টা কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিকে নিয়ে যেতে পারে।

পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (PPPs)

সরকার, বেসরকারী খাত এবং সুশীল সমাজের মধ্যে যৌথভাবে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে চালিত করে এমন প্রকল্পগুলি বিকাশ ও বাস্তবায়নের জন্য সহযোগিতা বৃদ্ধি করুন।

আরো পড়ুন- পিপিপি মডেল কী?

গ্রামীণ উন্নয়ন ও জীবিকা বৃদ্ধি

Image by Rajesh Balouria from Pixabay

জীবিকার উন্নতি এবং শহরাঞ্চলে অভিবাসন(মাইগ্রেশন) কমাতে দক্ষতা প্রশিক্ষণ এবং ক্ষুদ্র-উদ্যোগ উন্নয়ন সহ গ্রামীণ উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন দরকার।

বাণিজ্য ও রপ্তানি উন্নয়ন

আন্তর্জাতিক বাজারে প্রবেশের সুবিধা প্রদান, রপ্তানি প্রণোদনা প্রদান এবং বিশ্বব্যাপী তাদের নাগালের প্রসারে স্থানীয় শিল্পকে সহায়তা করা। এই পদক্ষেপগুলির জন্য সরকারি সংস্থা, বেসরকারি খাতের স্টেকহোল্ডার, বেসরকারি সংস্থা এবং স্থানীয় সম্প্রদায়ের সমন্বিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন৷ দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা, নীতি সংস্কার এবং মূল খাতে সুস্থিত বিনিয়োগ পশ্চিমবঙ্গের অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং সুস্থিত উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে।

উপসংহার

পশ্চিমবঙ্গের পক্ষে তার শক্তি এবং সুযোগগুলিকে পুঁজি করে বেকারত্ব, কর্মহীনতা এবং অবকাঠামোগত ঘাটতির মতো অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জগুলি মোকাবেলা করা গুরুত্বপূর্ণ। কৌশলগত পরিকল্পনা, নীতি সংস্কার এবং সক্রিয় উদ্যোগ ভবিষ্যতে এই রাজ্যের জন্য আরও শক্তিশালী এবং প্রাণবন্ত অর্থনীতি গঠনে সাহায্য করতে পারে।

Leave a Comment